যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথ সিটি ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং শিক্ষা বিনিময় টুইন লিংক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত



যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথ সিটি ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং শিক্ষা বিনিময় টুইন লিংক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠিত

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন, যুক্তরাজ্যের সাথে বাংলাদেশ তথা সিলেটের সম্পর্ক অত্যন্ত গভীরে। আর এই সম্পর্ক বৃদ্ধির মূল কারিঘর হচ্ছেন যুক্তরাজ্যে বসবাসরত আমাদের সিলেটী প্রবাসীরা।

তিনি রবিবার দুপুরে নগরীর একটি অভিযাত হোটেলের বলরুমে যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথ সিটি ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং শিক্ষা বিনিময় চুক্তি স্বাক্ষরিত অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

টুইন লিংক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে স্বাক্ষর করেন যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথ সিটি কাউন্সিলের কাউন্সিল লিডার এন্ড ট্রেড মিশন লিডার জেরাল্ড ভার্নন জ্যাকসন ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

এর আগে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী প্রতিনিধিদলকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, সিলেট নগরীর সাথে পোর্টসমাউথ সিটির বাণিজ্য, বিনিয়োগ এবং শিক্ষা বিনিময় চুক্তি প্রস্তাব আসার পর আমরা এ বিষয়ে ব্যাপক খোঁজখবর নেই। এর পর শিক্ষা, পর্যটন এবং ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্টের ক্ষেত্রে আমরা একযোগে কাজ করতে আগ্রহী হই। চুক্তিকে সফলকাম করতে উভয় সিটির মধ্যে নিয়মিত যোগাযোগ স্থাপনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, সিলেট অঞ্চলের বিপুল সংখ্যক প্রবাসী যুক্তরাজ্যে বসবাস করেন। যুক্তরাজ্য প্রবাসী সিলেটীরা যুক্তরাজ্যের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন। এই প্রেক্ষাপটে এ চুক্তি উভয় সিটির জন্য কল্যাণকর হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

‘টুইন সিটি সাইনিং ছিরিমনি’ শীর্ষক এ অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে পোর্টসমাউথ সিটি কাউন্সিলের লিডার জ্যাকসন বলেন, বাংলাদেশের দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির দেশ। পোর্টসমাউথ সিটিতে অনেক প্রবাসী বাংলাদেশী বসবাস করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা উভয় সিটির মধ্যে শক্তিশালী সংযোগ স্থাপন করতে চাই। এ চুক্তির আওতায় উভয় সিটি শিক্ষা, তথ্য প্রযুক্তি ও ব্যবসা বাণিজ্যের ক্ষেত্রে সহযোগিতার হাত প্রসারিত করতে পারে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

জ্যাকসন বলেন, বর্তমানে যুক্তরাজ্য-বাংলাদেশের কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক অত্যন্ত শক্তিশালী। ব্রিটেনের সাথে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক বন্ধন দীর্ঘকালের যা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে।

তিনি বলেন, ব্রিটেনে বসবাসকারী বাংলাদেশিরা যুক্তরাজ্যের অর্থনীতিতে বেশ অবদান রাখছেন। ‘যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী অর্ধ মিলিয়নেরও বেশী বাংলাদেশিরা ব্রিটিশ মূল্যবোধ, ঐতিহ্য, অর্থনীতি ও জীবন ধারায় অত্যন্ত ইতিবাচক অবদান রাখার পাশাপাশি বাংলাদেশের সাথে তাদের সর্বদা যোগাযোগ ও সম্পর্ক রেখে চলেছেন। এ জন্য তারা প্রশংসার পাওয়ার যোগ্য।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে ইউনিভার্সিটি অব পোর্টসমাউথের গ্লোবাল ডিরেক্টর ববি মেহতা, পোর্টসমাউথ বাংলাদেশ বিজনেস এসোসিয়েশনের চেয়ার রাজা আলী, ইন্টারলিংক বিজনেস কনসালটেন্সির ম্যাবস নূর, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (যুগ্ম সচিব) বিধায়ক রায় চৌধুরী, সিলেট সিটি কর্পোরেশনে প্রধান প্রকৌশলী নূর আজিজুর রহমান, সিটি কাউন্সিলর শওকত আমিন তৌহিদ এবং আব্দুল মুহিত জাবেদ বক্তব্য রাখেন। পরে সিসিকের পক্ষ থেকে যুক্তরাজ্যের পোর্টসমাউথ সিটি কাউন্সিলের কাউন্সিল লিডার এন্ড ট্রেড মিশন লিডার জেরাল্ড ভার্নন জ্যাকসনকে সম্মাননা ক্রেষ্ট ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। অপর দিকে পোর্টসমাউথ সিটি লিডার জেরাল্ড ভার্নন জ্যাকসন সিসিক মেয়কে বিভিন্ন সামগ্রী উপহার দেন।